post

এক নজরে ২০২১ বিশ্ব ও স্বদেশ

হারুন ইবনে শাহাদাত

০৮ জানুয়ারি ২০২২

সময়ের পরিক্রমায় ইতিহাসের পাতায় যোগ হলো আরো একটি পুরনো বছর ২০২১ ঈসায়ী। চলে যাওয়া ঐ দিনগুলো আর ফিরে আসবে না। তবে ইতিহাসের পাতা উল্টাতে গেলেই সরব হয়ে মানবজাতিকে আগামী দিনের পথচলার দিকনির্দেশনা দিবে। তাই সময়ের পর্বে ঘটা গুরুত্বপূর্ণ দিনগুলোকে হারিয়ে যেতে দেন না ইতিহাসবেত্তারা। ইতিহাসের পাতায় বন্দি করে রাখেন। বিগত বছরের এমন কিছু আন্তর্জাতিক ও জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা মাসিক প্রেরণার পাতায় বন্দি করা হলো। করোনাভাইরাস ও ভ্যাকসিন ২০২০ সালে বিশ্বমানবতার জন্য লালবার্তা নিয়ে আসে করোনাভাইরাস। এই প্রাণঘাতী ভাইরাস আতঙ্ক ২০২১ সাল জুড়েও ছিল। তবে এ বছরের শেষে আশার আলো দেখা যায়। এই বছরই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মানবদেহে করোনাভাইরাস প্রতিষেধক ভ্যাকসিন অনুমোদন দেয়। ২০২১ সালের ২৪ আগস্ট বিশ্বে প্রথম করোনার টিকা হিসেবে স্থায়ী অনুমোদন পায় ফাইজার-বায়োএনটেকের করোনার টিকা। এর আগে এটি শুধু জরুরি ব্যবহারের অনুমোদন দেয়া হয়েছিল। এরপর এক এক করে অনুমোদন পায়, অ্যাস্ট্রাজেনেকা, স্পুটনিক-৫, সিনোফার্মের ভ্যাকসিন, মডার্না, কোভিশিল্ড, জনসন অ্যান্ড জনসন, ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন, ক্যানসিনোবায়োর। আমাদের দেশের বঙ্গভ্যাক পরীক্ষামূলক ব্যবহারের অনুমোদন পেলেও নানান জটিলতায় এখন পর্যন্ত প্রয়োগ শুরু হয়নি। ২০২১ সালের শেষের দিকে নতুন করে আতঙ্ক ছড়ায় করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন। ওমিক্রন দ্রুত ছড়ালেও এতে প্রাণহানির আশঙ্কা কম। বছরের শুরু ও শেষে আমেরিকার চমক আমেরিকার রাজনীতিতে এমন কিছু ঘটনা ঘটেছে যার সাথে সে দেশের নাগরিকরা খুব একটা পরিচিত নন। উদার গণতান্ত্রিক দেশ আমেরিকায় ক্ষমতা হস্তান্তর হয় শান্তিপূর্ণ প্রক্রিয়ায়। কিন্তু ২০২০ অনুষ্ঠিত ৪৬তম প্রেসিডেন্ট নির্বাচন এবং ক্ষমতা হস্তান্তর প্রক্রিয়ায়। সেই প্রক্রিয়ায় কিছুটা ব্যত্যয় ঘটেছে। এরপর প্রভাব বিগত বছর ২০২১-এ ব্যাপকভাবে লক্ষ করা গেছে। যা ছিল সেদেশের নাগরিক ও বিশ্ববাসীর কাছে নেতিবাচক চমক। আমেরিকার প্রেসিডেন্ট নির্বাচনোত্তর উত্তাল হওয়ায় বছরের শুরুতে বিশ্বরাজনীতি ছিল উত্তপ্ত। নবনির্বাচিত প্রেসিডেন্টের কাছে ক্ষমতার হাতবদলের আনুষ্ঠানিক দিবসের মাত্র এক সপ্তাহ আগে বিদায়ী প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অপসারণের আয়োজন চলে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে। দেশটির সংসদ ভবন ক্যাপিটল হিলে উগ্র সমর্থকদের উসকে দিয়ে রক্তক্ষয়ী ঘটনা ঘটানোর অভিযোগে ট্রাম্পকে অভিশংসনের উদ্যোগ নিয়েছিল মার্কিন কংগ্রেস। গত ২০২১ সালের ১৩ জানুয়ারি বুধবারের ভোটাভুটিতে প্রতিনিধি পরিষদের সভায় সংখ্যাগরিষ্ঠ ভোটে ট্রাম্পের ইমপিচ প্রস্তাব পাস হয়। কিন্তু শেষ পর্যন্ত অভিশংসন থেকে রক্ষা পান ট্রাম্প। অবশ্য আগের গত ১২ জানুয়ারি মঙ্গলবার কংগ্রেসের নিম্নকক্ষ প্রতিনিধি পরিষদের স্পিকার ন্যান্সি পেলোসিকে মাইক পেন্স জানিয়েছেন যে, তিনি ২৫তম সংশোধনীর বিরোধী। অনেক রিপাবলিকান সিনেটর-এর বিপক্ষে যুক্তি দেখিয়ে বলছেন যে, এই উদ্যোগ বিভক্ত আমেরিকাকে ঐক্যবদ্ধ করার প্রচেষ্টাকে ক্ষতিগ্রস্ত করবে। শুধু বছরের শুরুতে নয় শেষেও আন্তর্জাতিক মিডিয়া ছিল আমেরিকার দখলে। ২০২১ সালের ৩১ আগস্টের চূড়ান্ত সময়সীমার মধ্যেই কাবুল থেকে নিজেদের নাগরিক ও নির্দিষ্ট আফগানদের উদ্ধার করে আফগানিস্তান ছেড়েছে সর্বশেষ মার্কিন সেনা। এর মাধ্যমে জো বাইডেন ঘোষিত নির্দিষ্ট দিনের মধ্যেই আফগানিস্তান ছেড়ে যায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। ৮২তম এয়ারবোর্ন ডিভিশনের কমান্ডার মেজর জেনারেল ক্রিস ডোনাহাওয়ের একটি ছবি পোস্ট করে মার্কিন প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় এক টুইটবার্তায় বলে, আফগানিস্তানে আমেরিকার সর্বশেষ সেনাটিও কাবুল ছাড়ছে। মার্কিন সামরিক বাহিনীর জেনারেল কেনেথ ম্যাকেঞ্জি জানান, তারা ছয় হাজার মার্কিন নাগরিকসহ ৭৯ হাজার মানুষকে কাবুল থেকে যুক্তরাষ্ট্রে নিয়ে যায়। এর মাধ্যমে আফগানিস্তানে ২০০১ সালের ১ সেপ্টেম্বর শুরু হওয়া আমেরিকান আগ্রাসনের সমাপ্তি হয়। আমেরিকার পরাজয়ের মধ্য দিয়ে শেষ হয় ২০ বছর ধরে চলা যুদ্ধ। ২০২১ সালের ৯ ও ১০ ডিসেম্বর মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আয়োজন করেছিলেন গণতন্ত্র সম্মেলন। এ সম্মেলনে ১১০টির বেশি দেশকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছিল। কিন্তু এ সম্মেলনে পাকিস্তান, ইরাকের মতো দেশ দাওয়াত পেলেও ছিল না বাংলাদেশ। আরো দুঃসংবাদ আসে গণতন্ত্র সম্মেলন শেষ হওয়ার পর। একতরফা নির্বাচন অনুষ্ঠানের মাধ্যমে গণতন্ত্র হত্যা, বিরোধী দলের নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে মিথ্যা মামলা দিয়ে অত্যাচার নির্যাতন, গুম খুনের মাধ্যমে বিতর্কিত নির্বাচনে বিজয়ী সরকারকে অবৈধভাবে ক্ষমতায় টিকিয়ে রাখার অভিযোগে বাংলাদেশের সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের সময় বাংলাদেশ বর্ডার গার্ড বিজিবি প্রধান) আজিজ আহমেদের ভিসা বাতিল, পুলিশের বর্তমান আইজি ও র‌্যাবের সাবেক ডিজি বেনজীর আহমদ এবং র‌্যাবের বর্তমান ডিজিসহ সাত কর্মকর্তাকে আমেরিকায় নিষিদ্ধ এবং তাদের কোনো সম্পত্তি আমেরিকায় থাকলে তা বাজেয়াপ্ত করে আমেরিকা। আফগানিস্তানের স্বাধীনতা লাভ ও তালেবান সরকার গঠন পরাশক্তি আমেরিকার পরাজয় এবং সৈন্য প্রত্যাহারের পর ২০২১ সালের ৩১ আগস্ট মঙ্গলবার রাজধানী কাবুলে অবস্থিত হামিদ কারজাই আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের নিয়ন্ত্রণ নেন তালেবান যোদ্ধারা। এরপরই জয় উদযাপন করতে দেখা গেছে তাদের। আকাশে গুলি ছুড়ে আফগান সদস্যরা আনন্দ প্রকাশ করেছেন। এর আগে তালেবান দেশের নিয়ন্ত্রণ নিলেও যুক্তরাষ্ট্র কাবুল বিমানবন্দরের নিয়ন্ত্রণে ছিল। কিন্তু অবশেষে বিমানবন্দরের নিয়ন্ত্রণ তালেবানের হাতে আসার পর পুরোপুরি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে আফগানিস্তান। কাবুল বিমানবন্দর থেকে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে তালেবানের মুখপাত্র জাবিউল্লাহ মুজাহিদ বলেন, আমাদের এ বিষয়ে কোনো সন্দেহ নেই যে, ইসলামিক আমিরাত অব আফগানিস্তান এখন স্বাধীন এবং সার্বভৌম রাষ্ট্র। তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্র পরাজিত হয়েছে এবং আমাদের দেশের পক্ষ থেকে আমরা বিশ্বের বাকি দেশগুলোর সঙ্গে ভালো সম্পর্ক স্থাপন করতে চাই। আমরা আফগান নাগরিকদের প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি যে, আমরা আমাদের স্বাধীনতা, মুক্তি এবং ইসলামিক মূল্যবোধ রক্ষা করব। তালেবানের প্রতিষ্ঠাতাদের একজন মোল্লা মোহাম্মদ হাসান আখুন্দকে প্রধানমন্ত্রী করে আফগানিস্তানের অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের ঘোষণা হয়। সরকারে প্রথম উপপ্রধানমন্ত্রী করা হয়েছে তালেবানের সহপ্রতিষ্ঠাতা মোল্লা আব্দুল গনি বারাদারকে। তালেবানের এই সরকারে দ্বিতীয় উপপ্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করবেন আব্দুল সালাম হানাফি। অন্তর্বর্তীকালীন সরকারের পররাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে আমির খান মুক্তাকির নাম ঘোষণা করা হয়েছে। প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাখা হয়েছে মোহাম্মদ ইয়াকুবকে। তালেবানের প্রতিষ্ঠাতা মোল্লা ওমরের ছেলে ইয়াকুব এত দিন এই গোষ্ঠীর সামরিক কমান্ডারের দায়িত্ব পালন করে আসছিলেন। অন্তর্বর্তীকালীন এই সরকারের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী করা হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের সন্ত্রাসী তালিকায় থাকা হাক্কানি নেটওয়ার্কের প্রধান সিরাজউদ্দিন হাক্কানিকে। নবগঠিত সরকারের আইনমন্ত্রী করা হয়েছে আব্দুল হাকিম শারিকে। সীমান্ত ও উপজাতিবিষয়ক মন্ত্রী করা হয়েছে মোল্লা নুরুল্লাহ নূরকে। এ ছাড়া তালেবান সরকারের গোয়েন্দা শাখার দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে মোল্লা আব্দুল হক ওয়াসিককে। দেশটির অর্থমন্ত্রী (ফিন্যান্স) হিসেবে মোল্লা হেদায়েতুল্লাহ বাদরির নাম ঘোষণা করা হয়েছে। অর্থনীতিবিষয়ক (ইকোনমি) মন্ত্রী করা হয়েছে কারি দীন মোহাম্মদ হানিফকে। যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটির কেন্দ্রীয় ব্যাংকের গভর্নর বানানো হয়েছে হাজি মোহাম্মদ ইদরিসকে। জ্বালানি ও পানিমন্ত্রী করা হয়েছে মোল্লা আব্দুল লতিফ মনসুরকে। পল্লিমন্ত্রী করা হয়েছে মোল্লা ইউনুস আখুনজাদার নাম। মোল্লা আব্দুল মান্নান ওমারিকে গণপূর্তমন্ত্রী করা হয়েছে। খনি ও পেট্রোলিয়ামমন্ত্রী করা হয়েছে মোল্লা মোহাম্মদ ইশা আখুন্দকে, সংস্কৃতি ও তথ্যমন্ত্রী করা হয়েছে মোল্লা খাইরুল্লাহ খয়েরখাকে। তালেবান সরকারের মুখপাত্রের দায়িত্ব পালন করা জাবিউল্লাহ মুজাহিদকে সংস্কৃতি ও তথ্য মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী করা হয়েছে। তালেবান সরকারের যোগাযোগমন্ত্রী হয়েছেন মৌলভী নাজিবুল্লাহ হাক্কানি, উচ্চশিক্ষা মন্ত্রী করা হয়েছে আব্দুল বাকি হাক্কানিকে এবং শরণার্থী ও প্রত্যাবাসনমন্ত্রী করা হয়েছে হাজি খলিল উর রহমান হাক্কানিকে। আবার সামরিক শাসন মিয়ানমারে নতুন সঙ্কট ২০২১ সালের ১ ফেব্রুয়ারি আবারও ক্ষমতা দখলের মধ্য দিয়ে নতুন সঙ্কটে পড়েছে মিয়ানমার। এক সময়ের মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ স্বাধীন দেশ আরাকান বার্মার (মিয়ানমার) দখলে যাওয়ার পর এ অঞ্চলে এক নতুন সঙ্কটের সৃষ্টি হয়। বার্মা চলে যায় সামরিক শাসনের অধীনে। সামরিক বাহিনী দেশটির নাম পরিবর্তন করে রাখে মিয়ানমার। আরাকানের নাম বদলে রাখে রাখাইন। এ সবই অতীতের ঘটনা। এই ঘটনাপ্রবাহের ধারাবাহিকতায় রাখাইনের নির্যাতিত মুসলমানরা দলে দলে চলে আসে বাংলাদেশে। বিশ্ব মুখোমুখি হয় রোহিঙ্গা সমস্যা নামের আরেক নতুন সঙ্কটে। শান্তি নোবেল বিজয়ী অং সান সু চির প্রশ্নবিদ্ধ ভূমিকায় সঙ্কট আরো বাড়ে। ২০২০ গত বছরের ৮ নভেম্বরে অনুষ্ঠিত নির্বাচনে সু চির দল দ্য ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি ৮৩ শতাংশ আসনে জয়ী হয়। ২০১১ সালে সেনা শাসনের অবসানের পর এটি ছিল দ্বিতীয় দফা নির্বাচন। তবে নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তোলে মিয়ানমারের সেনাবাহিনী। সঙ্কটের শুরুটা মূলত এখান থেকেই। সেনাবাহিনীর প্রধান জেনারেল মিন অং হ্লাইং কিছুদিন আগে এক বক্তব্যে মিয়ানমারের সংবিধান বাতিল করার হুঁশিয়ারি দিয়েছিলেন। এরপরই উত্তেজনা চরমে ওঠে। ইয়াঙ্গুনের বাডুজ্যিক এলাকার রাস্তায়, রাজধানী নেইপিডো ও অন্যান্য এলাকায় সেনাবাহিনীর ট্যাংক মোতায়েন করা হয়। গণতন্ত্রকামীরা এরপর থেকে জান্তাবিরোধী বিক্ষোভ অব্যাহত রেখেছে। মানবাধিকারকে তোয়াক্কা না করে সেনাবাহিনী নির্যাতন চালাচ্ছে। জান্তা বিরোধীরাও সরকার ঘোষণা করেছে। আঞ্চলিক জোট আসিয়ান এবং বিশ্ব সংস্থা জাতিসংঘ জান্তাবিরোধী সরকারের সাথে সহযোগিতা অব্যাহত রাখার ঘোষণা দিয়েছে। এবার শুধু রোহিঙ্গরা নয় গণতন্ত্রকামী বেসামরিক সকল নাগরিকই নির্যাতনের শিকার হচ্ছেন। ২০২১ সালের শেষ দিন পর্যন্ত এর কোন ব্যতিক্রম দেখা যায়নি। মিয়ানমারের সামরিক শাসন রোহিঙ্গা প্রত্যাবাসন প্রক্রিয়াকে ফেলেছে এক অনিশ্চয়তার নতুন কালো গহবরে। ইসরাইলের রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাসের পরাজয় ও হামাসের জয় দখলদার ইহুদিরা ২০২১ সালের মে মাসে ফিলিস্তিন ভূ-খণ্ডে মুসলমানদের ওপর বিরামহীনভাবে টানা ১১ দিন রাষ্ট্রীয় সন্ত্রাস চালায়। পশ্চিমাদের মদদে আর মুসলিম বিশ্বের নিষ্ক্রিয় ভূমিকায় রক্তের নেশায় মেতে উঠেছিল যে ইসরাইলি হানাদার বাহিনী সেই প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহু ২৬০ জনের লাশ পেয়েই অবশেষে ক্ষান্ত দিলেন। হামাসের কঠোর প্রতিরোধের মুখে ১১ দিন পর অবশেষে যুদ্ধবিরতিতে সম্মত হলো ইসরাইল। অবসান হয় এক রক্তপিপাসু হায়েনার নৃশংস তাণ্ডব। যুদ্ধবিরতির ঘোষণার পরে উভয়পক্ষই নিজেকে বিজয়ী বলে দাবি করছে। গাজা ভূখণ্ডে প্রায় দুই হাজার হাউজিং ইউনিট, ৭৪টি সরকারি ভবন, ৩টি মজসিদ পুরোপুরি ধ্বংস করে দিয়েছে ইসরাইলি বাহিনী। এছাড়াও ১৬৮০০ হাউজিং ইউনিট, ৬৬টি স্কুল, ৪০টি মসজিদ আংশিক ধসে গেছে তাদের বোমার আঘাতে। সেখানকার পুলিশ হেডকোয়ার্টারও ধ্বংস হয়ে গেছে। ১৩ তলাবিশিষ্ট আন্তর্জাতিক মিডিয়া ভবনটি গুঁড়িয়ে দেয়া হয়েছে। ইন্টারনেট সেবাদানকারী বহুতল ভবনটি বোমা মেরে উড়িয়ে দিয়েছে ইসরাইলি হায়েনারা। গাজা ভূখণ্ডে বিশাল এলাকা পরিণত হয়েছে ধ্বংসস্তূপে। বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েছে এক লাখ ২০ হাজার মানুষ। অন্যদিকে ২৫৯ জন নিরীহ মানুষকে হত্যা করেছে। যাদের ৬৫ জন শিশু, ৩৯ জন নারী এবং ১৭ জন বয়স্ক মানুষ। সমূলে শেষ করে দেওয়া হয়েছে বহু পরিবারকে। আট হাজার লোক আহত হয়েছেন। হাসপাতালগুলো গুঁড়িয়ে দিয়েছে। ইলেকট্রিক পাওয়ার সিস্টেম ধ্বংস করে দেওয়া হয়েছে। এগুলো কি মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধ নয়? এগুলোর বিচার কি হওয়া উচিত নয়? আর ইসরাইলি বাহিনী যে একটি সন্ত্রাসী সংগঠন সে কথা অনেক সাবেক ইসরাইলি সেনা কর্মকর্তাই বলেছেন। তারা কোনো রাখঢাক ছাড়া স্পষ্টই বলেন যে, ইসরাইলের সরকার, তার সেনাবাহিনী এবং সেনা কর্মকর্তারা যুদ্ধাপরাধী। তাদের বিচার হওয়া উচিত। ইসরাইলি সেনাবাহিনীর ¯œাইপার নাদাভ ওয়েইম্যান ইসরাইলি সেনাবাহিনীর বীভৎসতা বর্ণনা করেন এভাবে- ‘আমরা একদিন মধ্য রাতে জেনিন শরণার্থী শিবিরে এক নিষ্পাপ ফিলিস্তিনির ঘরে হামলা করি। তাদের ঘর তছনছ করে দেই।’ ভারতে মোদি ম্যাজিক ব্যর্থ প্রতিবেশী দেশ ভারত বিগত ২০২১ সালজুড়ে বিশ্বমিডিয়ায় বিভিন্ন কারণে বড় জায়গা দখল করেছিল। তবে সবচেয়ে বেশি আলোচিত ঘটনা: করোনায় মৃত্যুর রেকর্ড, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির পরাজয় এবং সফল কৃষক আন্দোলন। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ২০২১ সালের ১৯ নভেম্বর কৃষকদের কাছে নতি স্বীকার করেন। তিনি ২০২০ সালের ২৩ সেপ্টেম্বর পাস হওয়া কৃষি আইন বাতিলের ঘোষণা দেন এই দিন। গত বছরের এপ্রিলে অনুষ্ঠিত বিধানসভা ‘নির্বাচনে ২০০ এর বেশি’ আসন পাওয়ার স্লোগান দেয়া বিজেপি শেষ পর্যন্ত ১০০ আসনও পায়নি। ২০২১ সালে ভারতের পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে ভরাডুবি হয় কেন্দ্রে ক্ষমতাসীন বিজেপির। কেরালা, তামিলনাড়ু ও পদুচেরিতেও সফলতা ঘরে তুলতে পারেনি দলটি। এছাড়া পর পর কয়েকটি উপ-নির্বাচনেও তাদের ভরাডুবি হয়েছে। এমন পরিস্থিতিতে যখন বিজেপি দিশেহারা, ঠিক সে মুহূর্তেই জানা গেল পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সরিয়ে গেরুয়া পতাকা তোলার জন্য বিজেপি সবচেয়ে বেশি টাকা খরচ করতে হয়েছিল। যার কারণে এখন প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে বিজেপির কেন্দ্রীয় নেতৃত্ব। ভারতের পশ্চিমবঙ্গের পাশাপাশি চলতি বছর আসাম, কেরালা, তামিলনাড়ু ও পদুচেরিতে বিধানসভা নির্বাচন হয়। এই পাঁচ রাজ্যের নির্বাচনে বিজেপি ২৫২ কোটি টাকা খরচ করেছে। শুধু তাই নয়, বাংলায় রাজত্ব করার জন্য এ অর্থের ৬০ শতাংশ ব্যয় করা হয়েছে। তারপরও মোদি ম্যাজিক কাজে লাগেনি। ইতিহাসবিদ গোলাম আহমদ মোর্তজার ইন্তেকাল ভারতের পশ্চিমবঙ্গের খ্যাতিমান ইতিহাসবিদ গোলাম আহমদ মোর্তজা গত ২০২১ সালের ১৫ এপ্রিল ভোর ৩টা ৩০ মিনিটে কলকাতার তালতলার জিডি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় ইন্তেকাল করেছেন। তার লিখিত উল্লেখযোগ্য গ্রন্থ হলো, ‘চেপে রাখা ইতিহাস’, ‘বাজেয়াপ্ত ইতিহাস’, ‘ইতিহাসের ইতিহাস’, ‘এ এক অন্য ইতিহাস’, ‘পুস্তক স¤্রাট’, ‘রক্তাক্ত ডায়েরি’, ‘বজ্র কলম’, ‘ইতিহাসের এক বিস্ময়কর অধ্যায়’, ‘এ সত্য গোপন কেন?’ ৪ হাজারের বেশি অভিবাসীর মৃত্যু গত ২০২১ সালেও যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশ সিরিয়া, আফগানিস্তান, ইয়েমেন, ফিলিস্তিন এবং দারিদ্র্যপীড়িত ও মানবাধিকার সঙ্কটে আক্রান্ত দেশ মিয়ানমার, বাংলাদেশসহ এশিয়া ও আফ্রিকার বিভিন্ন দেশ থেকে নতুন স্বপ্নের হাতছানিতে ইউরোপ আমেরিকার পথে অভিবাসীদের জোয়ার অব্যাহত ছিল। গত বছর বিশ্বব্যাপী সাড়ে চার হাজার অভিবাসী মৃত্যুবরণ করেছেন। বছরের শেষে মেক্সিকোয় একটি ট্রাক দুর্ঘটনায় বেশ কয়েকজন অভিবাসী নিহত হওয়ার পর এমন তথ্য প্রকাশ করেছে ইন্টারন্যাশনাল অর্গানাইজেশন ফর মাইগ্রেশন’স (আইওএম)। গত বছরের তুলনায় চলতি বছর মৃত্যুর হার বেড়েছে বলেও জানায় সংস্থাটি। এক বিবৃতিতে আইওএমের গ্লোবাল মাইগ্রেশন ডাটা অ্যানালাইসিস সেন্টারের পরিচালক ফ্রাংক ল্যাকজোকো জানান, কোভিড-১৯-এর কারণে মানুষের প্রাত্যহিক চলাচল সীমাবদ্ধ করা হলেও মিসিং মাইগ্রেন্ট প্রজেক্ট ফাইলে প্রতিদিনই বেশকিছু মৃত্যুর ঘটনা নথিভুক্ত করা হচ্ছে। আইওএম জানায়, গত বছর বিভিন্ন সীমান্তের অভিবাসী মৃত্যুর ঘটনা ছিল ৪ হাজার ২৩৬টি। চলতি বছরে এখন পর্যন্ত এটি বেড়ে দাঁড়ায় ৪ হাজার ৪৭০-এ। ২০১৪ সালের পর থেকে ৪৫ হাজার ৪০০-এর বেশি মৃত্যু ও নিখোঁজের ঘটনা নথিভুক্ত করেছে আইওএম মিসিং মাইগ্রেন্টস প্রজেক্ট। চলতি বছরের মৃত্যুর হার বছরটিকে আমেরিকা ও ইউরোপের জন্য বিপজ্জনক হিসেবে উপস্থাপন করছে। চলতি বছর মেক্সিকো সীমান্ত অতিক্রম করতে গিয়ে ৬৫১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। আমেরিকায় প্রবেশের চেষ্টায় চলতি বছর এক হাজার ১২১ জন মৃত্যুবরণ করেছেন। ইউরোপে প্রবেশের চেষ্টায় এ বছর মৃত্যুবরণ করেছেন দুই হাজার ৭২০ জন।

স্বদেশে এক নজর ২০২১ সালের দেশের আলোচিত ঘটনার কেন্দ্রবিন্দুতে ছিল ২০২০ সালে ছুটি ঘোষণার প্রায় দেড় বছর শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা, সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসা ও বিদেশ পাঠানোর জন্য আন্দোলন, বুয়েটের মেধাবী ছাত্র আবরার হত্যা মামলার রায়ে অভিযুক্ত ছাত্রলীগ নেতাদের ফাঁসির দণ্ডাদেশ ঘোষণা, হোটেল রেইন ট্রিতে ছাত্রীধর্ষণ মামলার রায়ে আসামিদের খালাস, জ্বালানি তেল ও গাড়ি ভাড়াসহ নিত্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি, শিক্ষার্থীদের নিরাপদ সড়ক আন্দোলন, গাজীপুর সিটি করোপরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীরসহ কয়েকজন নির্বাচিত স্থানীয় সরকার প্রতিনিধিকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার ও তাদের পদ বাতিল করে প্রজ্ঞাপন জারি, তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের পদত্যাগ। বিরোধী দলের ওপর নিপীড়ন করোনা মহামারীর কারণে ২০২১ সালের বেশিটা সময় কার্যত দেশ থমকে দাঁড়িয়ে গিয়েছিল। তার মধ্যেও থেমে ছিল না ক্ষমতাসীন দলের নেতা-কর্মীদের হত্যা সন্ত্রাস ত্রাণ লুট, দুর্নীতি। সমানতালে চলেছে গণতন্ত্রের পক্ষের শক্তি বিএনপি ও জামায়াতে ইসলামীর নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট এবং এর সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মীদের হামলা-মামলা, গ্রেফতার, জেল-জুলুম নির্যাতন। রাজপথে মানববন্ধন ছাড়া অন্য সব ধরনের রাজনৈতিক কর্মসূচি বন্ধ থাকলেও ঘরোয়া মিটিং এমনকি পারিবারিক ও সামাজিক অনুষ্ঠানকে গোপন বৈঠক আখ্যায়িত করে সেখানে উপস্থিত নেতা-কর্মীদের গ্রেফতার করা হয়েছে সরকার। বিএনপি চেয়ারপারসন ও সাবেক প্রধানমন্ত্রী বেগম খালেদা জিয়া গুরুতর অসুস্থ। চিকিৎসকরা বলে দিয়েছেন, ‘এদেশে তাঁর চিকিৎসা সম্ভব নয়। কিন্তু তারপরও সরকার অনড়। বিএনপির অভিযোগ তাঁকে গৃহবন্দি করে তিলে তিলে মৃত্যুর মুখে ঠেলে দিচ্ছে সরকার। অন্যদিকে অনেক বড় বড় অপরাধী ধরাছোঁয়ার বাইরে থাকছে। ধর্ষণের মতো মানবতাবিরোধী অপরাধের হুমকি দেয়ার পরও প্রতিমন্ত্রীর স্বাধীন জীবনযাপন কিংবা বিদেশে যেতে কোনো বাধা দিচ্ছে না। এমনকি রাষ্ট্রও তাঁর ওপর সংক্ষুব্ধ নয়। জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেলসহ কেন্দ্রীয় নেতৃবৃন্দ গ্রেফতার গোপন বৈঠকের ভিত্তিহীন অভিযোগে রাজধানীর একটি বাসা থেকে ২০২১ সালের ৬ সেপ্টেম্বর পুলিশ বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামীর সেক্রেটারি জেনারেল সাবেক এমপি অধ্যাপক মিয়া গোলাম পরওয়ার, নায়েবে আমির শামসুল ইসলাম, শাহজাহান চৌধুরী, সহকারী সেক্রেটারি জেনারেল মাওলানা রফিকুল ইসলাম খান, হামিদুর রহমান আজাদ (সাবেক এমপি) সহ কয়েকজন নেতাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। তারাসহ ২০ দলীয় জোটের কয়েক হাজার নেতা-কর্মী মিথ্যা মামলায় জেলহাজতে বন্দি আছেন। প্রশ্নবিদ্ধ মানবাধিকার এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা প্রশ্নবিদ্ধ মানবাধিকার এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনমূলক কাজে জড়িত থাকার অভিযোগে বাংলাদেশের বিশেষ পুলিশ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এবং এর ছয়জন কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। মার্কিন অর্থ দফতরের এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ বছরের শেষ মাস ডিসেম্বরের ১০ তারিখে খবর প্রকাশ করা হয়। এতে বলা হয়, শুক্রবার (গত ১০ ডিসেম্বর) আন্তর্জাতিক মানবাধিকার দিবসের এই দিনে মার্কিন অর্থ দফতরের ফরেন অ্যাসেটস কনট্রোল অফিস (ওএফএসি) বিভিন্ন দেশের মোট ১০টি প্রতিষ্ঠান ও ১৫ জন ব্যক্তির ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করছে- যারা মানবাধিকার লঙ্ঘন এবং নিপীড়নের সাথে সংশ্লিষ্ট। বিজ্ঞপ্তিতে উল্লিখিত ছয়জন কর্মকর্তা হচ্ছেন: চৌধুরী আবদুল্লাহ আল-মামুন (র‌্যাবের বর্তমান মহাপরিচালক), বেনজীর আহমেদ (সাবেক র‌্যাব মহাপরিচালক, জানুয়ারি ২০১৫-এপ্রিল ২০২০), খান মোহাম্মদ আজাদ (বর্তমান অতিরিক্ত মহাপরিচালক-অপারেশন্স), তোফায়েল মুস্তাফা সরওয়ার (সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক-অপারেশন্স, জুন ২০১৯-মার্চ ২০২১), মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম (সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক-অপারেশন্স, সেপ্টেম্বর ২০১৮-জুন ২০১৯), এবং মোহাম্মদ আনোয়ার লতিফ খান (সাবেক অতিরিক্ত মহাপরিচালক-অপারেশন্স, এপ্রিল-২০১৬-সেপ্টেম্বর ২০১৮)। এতে বলা হয়, গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনে জড়িত থাকার জন্য বেনজীর আহমেদের ওপর ভিসা বিধিনিষেধ আরোপ করার কথা ঘোষণা করেছে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর- যার ফলে তিনি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশের অযোগ্য হবেন। বিজ্ঞপ্তিটিতে বলা হয়, বাংলাদেশের বেসরকারি সংগঠনগুলো অভিযোগ করেছে যে র‌্যাব এবং অন্যান্য আইনপ্রয়োগকারী সংস্থা ২০০৯ সাল থেকে প্রায় ৬০০টি বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড, ৬০০-এরও বেশি লোকের অদৃশ্য হয়ে যাওয়া, এবং নির্যাতনের জন্য দায়ী। কিছু রিপোর্টে আভাস পাওয়া যায় যে এসব ঘটনায় বিরোধীদলীয় সদস্য, সাংবাদিক ও মানবাধিকার কর্মীদের টার্গেট করা হয়েছে - বলা হয় বিজ্ঞপ্তিতে। এতে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনমূলক কাজে প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে জড়িত থাকার অভিযোগে বাংলাদেশের বিশেষ পুলিশ র‌্যাপিড অ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‌্যাব) এবং এর ৬ জন কর্মকর্তার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করার কথা বলা হয়। এতে বলা হয়, ‘বাংলাদেশে মাদকবিরোধী অভিযানের সময় র‌্যাবের বিরুদ্ধে গুরুতর মানবাধিকার লঙ্ঘনের ব্যাপক অভিযোগ- আইনের শাসন, মানবাধিকার, মৌলিক স্বাধীনতা, ও বাংলাদেশের জনগণের অর্থনৈতিক উন্নয়নকে হেয় করার মাধ্যমে- মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা স্বার্থকে হুমকির মুখে ফেলছে।’ সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল আজিজ আহমেদের ভিসা বাতিল করেছে। পদত্যাগী তথ্য প্রতিমন্ত্রী ডা: মুরাদ হাসানকে কানাডার বিমানবন্দর থেকে ফেরত পাঠনো হয়েছে। শিক্ষার্থীদের জন্য হাফ ভাড়া নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি সাধারণ ছাত্র-ছাত্রীদের নিরাপদ সড়ক আন্দোলনের অন্যতম দাবি বেসরকারি পরিবহনে হাফ ভাড়া নির্ধারণ করে সরকার। ৫ শর্তে দেশের সব মহানগরে (মেট্রো এলাকায়) চলাচলরত বেসরকারি বাসে (সিটি সার্ভিস) শিক্ষার্থীদের হাফ ভাড়া নির্ধারণ করে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন মালিক সমিতির সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে গত ১২ ডিসেম্বর রোববার সড়ক পরিবহন আইন-২০১৮ এর ধারা ৩৪ (২) এ প্রদত্ত ক্ষমতাবলে এ প্রজ্ঞাপন জারি করা হয়। এতে যে ৫টি শর্তে হাফ ভাড়া কার্যকর করার কথা বলা হয়েছে, সেগুলো হলো- এ ভাড়া বিদ্যমান ভাড়ার ৫০ শতাংশ কম হবে, শিক্ষার্থীদের অবশ্যই নিজ নিজ শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ইস্যু করা ছবিযুক্ত হালনাগাদ বৈধ পরিচয়পত্র সঙ্গে রাখতে হবে এবং প্রয়োজনে প্রদর্শন করতে হবে, সকাল ৭টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত বেসরকারি বাসে চলাচলের ক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা এ হাফ ভাড়া (কন্সেসনকৃত ভাড়া) দেওয়ার সুযোগ পাবেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ছুটির দিনে এ হাফ ভাড়া প্রযোজ্য হবে না এবং দূরপাল্লার বাসে হাফ ভাড়া কার্যকর হবে না। প্রজ্ঞাপনে আরও বলা হয়, হাফ ভাড়া ঢাকা মহানগরে ২০২১ সালের ১ ডিসেম্বর থেকে এবং অন্যান্য মহানগর মেট্রো এলাকায় ২০২১ সালের ১১ ডিসেম্বর থেকে কার্যকর হয়েছে বলে গণ্য হবে। শহীদ আবরার ফাহাদ হত্যা মামলার রায় বাংলাদেশের প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) শিক্ষার্থী আবরার ফাহাদকে পিটিয়ে হত্যা মামলার রায়ে গত ২০২১ সালের ৮ ডিসেম্বর ২০ জনের মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এছাড়া পাঁচজনের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে। এই মামলায় মোট ২৫ জন আসামি ছিল। মামলায় অভিযুক্ত ২২ আসামি কারাগারে রয়েছেন, তিনজন পলাতক। আসামিদের বিরুদ্ধে মোট তিনটি অভিযোগ আনা হয়েছে। এগুলো হচ্ছে, ৩০২ ধারায় নরহত্যা, ৩০২ এবং ৩৪ ধারা অনুযায়ী হত্যার পূর্ব-পরিকল্পনা এবং ১০৯ ও ১১৪ ধারায় হত্যায় অংশগ্রহণের অভিযোগ গঠন করা হয়। এসব অভিযোগে বলা হয়, তারা পরস্পর যোগসাজশে ‘শিবির সন্দেহে’ আবরার ফাহাদের বিরুদ্ধে মিথ্যা, বানোয়াট এবং ভিত্তিহীন অভিযোগ এনে নির্মমভাবে পিটিয়ে হত্যা করেছে। কুষ্টিয়ার ছেলে আবরার ফাহাদ বুয়েটের ইলেকট্রিকাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিকস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী ছিলেন। ২০১৯ সালের সাতই অক্টোবর বুয়েটের শেরেবাংলা হলের সিঁড়ি থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করে পুলিশ। শিক্ষার্থী নিহত হওয়ার ঘটনা ছড়িয়ে পড়লে বুয়েটের শিক্ষার্থীরা ক্যাম্পাসে জড়ো হয়ে বিক্ষোভ করতে শুরু করেন। সে প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় বা বুয়েট কর্তৃপক্ষ ক্যাম্পাসে সব ধরনের রাজনৈতিক সংগঠন এবং ছাত্ররাজনীতি নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন। ভয়াবহ লঞ্চ দুর্ঘটনা সড়ক ও নৌদুর্ঘটনা এদেশের নিত্যদিনের ব্যাপার। তবে কোন কোন বছর এমন সব ভয়াবহ দুর্ঘটনা ঘটে যার ক্ষত থাকে চিরদিন। গত বছরের ৪ এপ্রিল এমনই এক মর্মান্তিক দুর্ঘটনা ঘটেছিল। নারায়ণগঞ্জ সদর উপজেলার সৈয়দপুর কয়লাঘাটে শীতলক্ষ্যায় একটি কার্গো জাহাজের ধাক্কায় এমভি সাবিত আল হাসান নামে ডুবে যাওয়া লঞ্চের ৩৪ যাত্রীর মৃত্যু ও ২৪ ডিসেম্বর ঝালকাঠির সুগন্ধা নদীতে ভোর রাতে যাত্রীবোঝাই একটি লঞ্চে আগুন লেগে ৪২ জনের মর্মান্তিক মৃত্যু হয়। আওয়ামী লীগের জনসমর্থন কমেছে ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় এবং জোর করে ভোট নেয়ার পরও আওয়ামী লীগের ব্যানার ও নৌকা মার্কায় প্রতীকের বিজয় সংখ্যা কমছে। আওয়ামী লীগের ভোট ও দলটির পক্ষে জনসমর্থন কমেছে। ইউনিয়ন পরিষদ ও পৌরসভা নির্বাচনের প্রতিটি ধাপেই কমছে আওয়ামী লীগের ভোট। প্রথম ধাপে ৭৬ শতাংশ আসনে জয় পেলেও তৃতীয় ধাপে তা দাঁড়িয়েছে ৫৪ শতাংশে। যা দ্বিতীয় ধাপে ছিল ৫৯ শতাংশ। মোদির বাংলাদেশ সফরের বিরোধী আন্দোলনে উত্তাল দেশ ২০২১ সালের মার্চে বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী অনুষ্ঠানে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির আগমনকে কেন্দ্র করে সারা বাংলাদেশ জুড়ে আন্দোলন বিক্ষোভ শুরু হয়। এই আন্দোলন দমনের নামে পুলিশ সরকারের নির্দেশে ব্যাপক জুলুম নির্যাতন চালায়। এতে কমপক্ষে ১৭ জন নিহত; এবং ৫০০ জনের বেশি প্রতিবাদী মানুষ আহত হন। এই ঘটনা ২১-এর মোদি-বিরোধী বিক্ষোভ হিসেবে বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক মিডিয়ায় ব্যাপকভাবে আলোচিত হয়। গুজরাট সহিংসতা, বাবরি মসজিদ ইস্যুর পাশাপাশি ভারতের সংখ্যালঘু মুসলমানদের উপর নির্যাতন এবং উগ্র সাম্প্রদায়িক হিন্দুত্ববাদী দৃৃষ্টিভঙ্গির জন্য মোদিকে অভিযুক্ত করে তার বাংলাদেশ সফরের বিরোধিতা করে আসছিল হেফাজতে ইসলামসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক ও মানবাধিকার সংগঠন। গত ২০২১ সালের ২৬ মার্চ, শুক্রবার বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবস অনুষ্ঠানে যোগ দিতে ঢাকায় পৌঁছান ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। তার ঢাকায় আগমন উপলক্ষে সেদিন জুমার নামাজের পর বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদ প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ শুরু হয়, যা সারা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। এই বিক্ষোভে সরকার সমর্থকরা ও পুলিশ সহিংসতা শুরু করে। ২৮ মার্চ হেফাজতের একটি সংবাদ সম্মেলনে জানায়, ধর্মঘট চলাকালীন সময়ে বিক্ষোভের এক পর্যায়ে সারা দেশে ১৭ জন মৃত্যুবরণ করেন এবং প্রায় ৫০০ এর অধিক লোক আহত হন। তাদের দাবি অনুযায়ী, ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ১২ জন, চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে ৪ জন এবং নারায়ণগঞ্জের সাইনবোর্ড এলাকায় একজন মৃত্যুবরণ করেন। অপরদিকে ২৮ মার্চ, ২০২১ স্থানীয় গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে ১৪ জন মৃত্যুবরণ করেন বলে খবর প্রকাশিত হয়। আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংস্থা অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল, এই বিক্ষোভের উত্তরে বাংলাদেশ সরকারের কর্মকাণ্ডকে ‘রক্তাক্ত অভিযান’ বলে অভিহিত করে এবং বলে যে, ‘বাংলাদেশী কর্তৃপক্ষকে অবশ্যই সমাবেশের স্বাধীনতাকে সম্মান করতে হবে এবং শান্তিপূর্ণ বিক্ষোভকারীদের সুরক্ষা দিতে হবে।’ বাংলাদেশের ২০ জন বিশিষ্ট নাগরিক যৌথ বিবৃতিতে মোদি বিরোধী বিক্ষোভকারীদের উপর হামলা এবং চট্টগ্রামের হাটহাজারীতে সহিংসতা চালানোর জন্য দায়ী ব্যক্তিদের শাস্তি দাবি করেন। এইসব বিশিষ্ট নাগরিকদের মধ্যে আছেন: এম হাফিজ উদ্দিন খান, আলী ইমাম মজুমদার, অধ্যাপক আনু মুহাম্মদ, বদিউল আলম মজুমদার, সৈয়দা রিজওয়ানা হাসান, সারা হোসেন, সিআর আবরার, ড. জাফরুল্লাহ চৌধুরী, আসিফ নজরুল, শহীদুল আলম, হাসনাত কাইয়ুম, নূর খান লিটন, শিরীন হক, জাকির হোসেন, পারভিন হাসান, লুবনা মারিয়াম, শারমিন মুর্শিদ, ফেরদৌস হাসান, আজিম জামান ও রাহনুমা আহমেদ। ২৬ থেকে ২৮ মার্চ বাংলাদেশে সফরকালে প্রতিবাদ চলাকালীন সারা দেশে কমপক্ষে ১৪ জনের মৃত্যুর বিষয়ে নিরপেক্ষ ও স্বতন্ত্র তদন্তের আহ্বান জানিয়েছে ১১টি আন্তর্জাতিক মানবাধিকার সংগঠন। বাংলাদেশের প্রধান বিরোধী দল বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল, বাংলাদেশ জামায়াতে ইসলামী, ছাত্রদল ও ছাত্রশিবির মানুষ হত্যার প্রতিবাদ করে। এই ঘটনাকে ইস্যু করে সরকার ইসলামের পক্ষের কণ্ঠরোধ করতে আলেমসমাজ ও ইসলামপন্থী রাজনৈতিক নেতাদের বিরুদ্ধে ব্যাপক দমন-পীড়ন চালায়। নির্দলীয় ও সরাসরি কোনো রাজনীতির সাথে জড়িত নন এমন আলেমেদেরকেও গ্রেফতার ও তাদের চরিত্র হনন শুরু করে। যেমন- মাওলানা রফিকুল ইসলাম মাদানী, মাওলানা মামুনুল হক, মুফতি আমীর হামজা, মুফতি ইব্রাহিমসহ খ্যাতনামা অনেক আলেমকে গ্রেফতার করে। যাদের অনেকে এখনো জেলহাজতে আছেন। মিরপুরে পতাকা উড়িয়ে অনুশীলন গত ১৫ নভেম্বর মিরপুর একাডেমি মাঠে নিজ দেশের পতাকা উড়িয়ে প্রথম দিনের মতো অনুশীলন করে বাংলাদেশে খেলতে আসা পাকিস্তানি ক্রিকেট টিমের সদস্যরা। বিশ্বকাপ মিশন শেষে দুবাই থেকে সরাসরি বাংলাদেশ টাইগারদের সাথে তিনটি টি-টোয়েন্টি ও দুটি টেস্ট খেলতে আসে পাকিস্তান ক্রিকেট দল। অনুশীলনে নিজ দেশের পতাকা উড়ায় বাবর আজমের দল। তারা শুধু এদেশে নয় যেখানে খেলতে যান সেখানেই এভাবে অনুশীন করেন নিজেদের উজ্জীবিত রাখতে। কোথাও এ নিয়ে কোনো প্রশ্ন বা বিতর্ক সৃষ্টি না হলেও দেশের তথাকথিত মুক্তিযোদ্ধা সন্তানরা খুবই সঙ্কীর্ণতার পরিচয় দিয়ে বিদেশি অতিথি এবং পাকিস্তান টিম সমর্থকদের লাঞ্ছিত করে এবং উগ্রবাদী আচরণ করে। যা আন্তর্জাতিক মহলের কাছে দেশের ভাবমর্যাদাকে প্রশ্নবিদ্ধ করেছে বলে মনে করেন ক্রিকেট কূটনীতি বিশ্লেষকরা। পতাকা ওড়ানোর ব্যাখ্যা দিয়ে পাকিস্তান দলের মিডিয়া ম্যানেজার ইব্রাহিম বাদিস বলেন, ‘হেড কোচ সাকলায়েন মুশতাক ক্রিকেটারদের মধ্যে দেশপ্রেম জাগ্রত করতে এই কৌশল চালু করেছেন। বিশ্বকাপের আগে নিউজিল্যান্ডের বিপক্ষে হোম সিরিজের প্রস্তুতিতে এটি প্রথম চালু করা হয়। টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপেও আমরা এটা অনুসরণ করেছি।’ জাতীয় দলের দায়িত্ব নিয়েই নয়; সাকলায়েন মুশতাক পাকিস্তানের যুব দলগুলোর বেলায়ও একই নিয়ম চালু করেছেন বলে জানান ইব্রাহিম বাদিস। পাক দলের মিডিয়া ম্যানেজার আরও বলেন, ‘এর আগে সাকলায়েন মুশতাক যখন অনূর্ধ্ব-১৬ আর অনূর্ধ্ব-১৯ দলের দায়িত্বে ছিলেন একই কাজ করেছিলেন তিনি। এ ছাড়া ন্যাশনাল হাইপারফরম্যান্স ইউনিটের ক্যাম্পেও এমনটা করতে দেখা গেছে সাকলায়েনকে। এবার জাতীয় দলের দায়িত্ব নিয়েও তিনি এটি অব্যাহত রেখেছেন।’ নতুন বছরে আমাদের প্রত্যাশা- হত্যা, ষড়যন্ত্র ও হিংসা-প্রতিহিংসার মতো মানবতাবিধ্বংসী রাজনীতি বন্ধ করা হোক। করোনাসহ সকল আসমানি গজব থেকে মুক্তির জন্য পৃথিবীবাসী অবনত হোক মহান আল্লাহর কাছে। গণতন্ত্র মানবাধিকার সমুন্নত রেখে মানুষের কল্যাণে আলোকিত রাজনীতি বিকাশের মধ্য দিয়ে মানুষ মুক্তি পাক মানুষের গোলামি থেকে। এই পৃথিবীতে আবার ফিরে আসুক শান্তি। লেখক : সিনিয়র সাংবাদিক ও কলামিস্ট

আপনার মন্তব্য লিখুন

কপিরাইট © বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির