সর্বশেষঃ
post

স ম্পা দ কী য়

০৫ ফেব্রুয়ারি ২০২২
রাষ্ট্রভাষা হিসেবে আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়ে বাংলাভাষা ও বাংলাদেশের মর্যাদা এখন বিশ্বব্যাপী। বাংলাদেশ ছাড়া ভাষা নিয়ে পৃথিবীর আর কোনো দেশেই এত উৎসবমুখর পরিবেশ ঐতিহাসিকভাবে দেখা যায় না। পৃথিবীর আর কোনো দেশেই ভাষার মাস নেই। ফেব্রুয়ারি মাস মানে ভাষাকে নিয়ে নানামুখী আয়োজনের মাস। এটি বইপড়ার মাস; বই বেচা-কেনার মাস; নানাভাবে বাংলাভাষা চর্চা করার মাস। আর ছাত্রদের জন্য পড়াশোনার বিকল্প নেই। তাই বইকে বেছে নিতে হবে সবচেয়ে কাছের বন্ধু হিসেবে। বই আমাদের হতাশার ঘোর কাটিয়ে আশার প্রদীপ জ্বালে, সঠিক পথে চলতে সাহায্য করে, আমাদের অতীত ও বর্তমানের মধ্যে সেতুবন্ধ করে, দুঃখ দুর্দশা ও নিঃসঙ্গতায় সবচেয়ে বেশি সঙ্গ দেয়, আমাদের জ্ঞানের পিপাসা; মনের পিপাসা মিটায়। বই পড়ার মধ্য দিয়ে আমাদের জ্ঞানকে শাণিত করে দেশকে উন্নয়ন ও অগ্রগতির দিকে ধাবিত করতে হবে। ভাষা আন্দোলনের পথ ধরেই স্বাধীনতা আন্দোলনের স্বপ্ন দেখেছিল বাংলাদেশের ছাত্রসমাজ। নানা ঘাত-প্রতিঘাত পেরিয়ে বরকত, জব্বার সালামের আত্মত্যাগ আর দেশের সর্বস্তরের মানুষের ঐক্যবদ্ধ প্রয়াসে শত্রুর মোকাবিলা অনেক বড় অর্জন। ভাষা আন্দোলন সফল হয়েছে বলেই আজ আমরা কথা বলছি; লিখছি; পড়ছি। মানবতার মুক্তির পথে পথহারা মানুষকে তাওহিদের দিকে ডাকছি। কিন্তু ইতিহাস বিকৃতকারীরা আমাদের সংস্কৃতিকে ভিন্ন ধারায় প্রবাহিত করতে এখনো তাদের প্রচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। ভাষা আন্দোলনের অগ্রসেনানী অধ্যাপক গোলাম আযম এবং কবি আল মাহমুদকে ইতিহাস থেকে মুছে ফেলার চেষ্টা কোনো দিনও সম্ভব হবে না ইনশাআল্লাহ। তরুণ সমাজকে আমাদের স্বকীয় সংস্কৃতি রক্ষার জন্য সচেতন ভূমিকা পালন করতে হবে। ৬ ফেব্রুয়ারি বাংলাদেশের স্বপ্নবাজ এক কাফেলার শুভ প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। শিক্ষাঙ্গনে রাজনীতির নোংরা খেলা বন্ধ এবং হেরার আলোয় এদেশের ছাত্রসমাজকে আলোকিত করার লক্ষ্যে ১৯৭৭ সালের ৬ ফেব্রুয়ারি জন্ম নেয়া প্রিয় কাফেলাটির নাম বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির। শত ঝঞ্ঝার পথ মাড়িয়ে ৪৫ বছরের দীর্ঘপথ পাড়ি দিতে যাচ্ছে প্রিয় কাফেলাটি। সময়ের পরিক্রমায় ইসলামী ছাত্রশিবির আজ একটি আলোকিত ও বিকশিত সংগঠন। আল্লাহর সন্তুষ্টি অর্জন এবং তাঁর উপর ভরসা রেখেই এক সাগর হিম্মত বুকে ধারণ করে এগিয়ে চলছে প্রেরণার এ মিছিল। ক্ষুধা ও দারিদ্র্যমুক্ত দেশগঠনের পাশাপাশি এর নাগরিকদের সৎ, দক্ষ ও দেশপ্রেমিক হিসেবে গড়ে তোলাই তাদের স্বপ্ন। ছাত্রসমাজের মূূল্যবোধ, দেশপ্রেম ও নৈতিক মানদণ্ড অর্জনে ইসলামী ছাত্রশিবির এখনো বাংলাদেশের একমাত্র ছাত্রসংগঠন। অনৈতিক দুর্ঘটনার সংবাদ এখন নিত্যনৈমিত্তিক ব্যাপার। অশ্লীল সংস্কৃতির ভয়াবহতা অনেকটা নিচে নামিয়েছে আমাদের প্রজন্মকে। শুধু জাগতিক শিক্ষায় শিক্ষিত বা প্রাকটিক্যালি ইসলাম মেনে না চলা শিক্ষিতরাও হারিয়ে ফেলতে বসেছে নিজেদের চরিত্র। ইসলাম শিক্ষাকে গুরুত্বহীন মনে করার ফলে জাতি সামগ্রিকভাবে অধঃপতনের দিকে ধাবিত হচ্ছে। এমতাবস্থায় ইসলাম-সচেতন নাগরিক হিসেবে আমাদের নিজেদের ইসলাম ও ইসলামী আন্দোলনকে আঁকড়ে ধরে থাকার পাশাপাশি পরিবার, আত্মীয়স্বজনসহ সমাজের সকল স্তরের মানুষের মাঝে ইসলামী আন্দোলনের দাওয়াত পৌঁছে দেওয়ার জন্য প্রচেষ্টা জোরদার করতে হবে। ছাত্রসমাজকে সত্য ও ন্যায়ের পতাকাবাহী হয়ে জাতিকে উন্নত ও সচ্চরিত্রবান করে গড়ে তোলার বিকল্প নেই।

আপনার মন্তব্য লিখুন

কপিরাইট © বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির