post

হিট স্ট্রোক প্রতিরোধ করণীয়

ছাত্রসংবাদ ডেস্ক

২৫ এপ্রিল ২০২৪

ছাত্র সংবাদ ডেস্ক

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাচ্ছে তাপপ্রবাহ। তীব্র গরমে বাড়ে হিট স্ট্রোকের ঝুঁকি। শরীরে পানি ও লবণের পরিমাণ কমে গেলে হিট স্ট্রোক হয়। এই গরমে সুস্থ থাকতে চাইলে সচেতন থাকার বিকল্প নেই। মানুষের শরীরের স্বাভাবিক তাপমাত্রা ৩৭ ডিগ্রি সেলসিয়াস বা ৯৮ দশমিক ৪ ডিগ্রি ফারেনহাইট। কোনো কারণে শরীরের তাপমাত্রা বেড়ে গেলে রক্তনালি প্রসারিত করে অতিরিক্ত তাপ পরিবেশে ছড়িয়ে দেয় শরীর। ঘামের মাধ্যমেও তাপ কমায় শরীর। তবে প্রচ- গরম ও আর্দ্র পরিবেশে বেশি সময় অবস্থান বা পরিশ্রমের কারণে শরীরের তাপমাত্রা ১০৫ ডিগ্রি ফারেনহাইট ছাড়িয়ে গেলে হতে পারে হিট স্ট্রোক। শরীরের তাপ নিয়ন্ত্রণক্ষমতাও তখন নষ্ট হয়ে যায়।

হিট স্ট্রোকের লক্ষণ

* মাথা ব্যথা

* চোখে ঝাপসা দেখা

* মাংসপেশির ব্যথা ও দুর্বলতা

* শ্বাস-প্রশ্বাস দ্রুত হওয়া

* ত্বক লালচে হয়ে ওঠা

* গরম লাগলেও ঘাম কম হওয়া

* বমি হওয়া

* হৃদস্পন্দন বেড়ে যাওয়া

* হাঁটতে কষ্ট হওয়া

হিট স্ট্রোকের ঝুঁকিতে যারা বেশি

* শিশু

* বয়স্ক

* প্রতিবন্ধী ব্যক্তি

* শ্রমজীবী ব্যক্তি যেমন রিকশাচালক, নির্মাণশ্রমিক, কৃষক 

* যাদের ওজন বেশি

* যারা শারীরিকভাবে অসুস্থ বিশেষ করে যাদের হৃদরোগ বা উচ্চ রক্তচাপ আছে 


হিট স্ট্রোক প্রতিরোধে করণীয় 

* দিনের বেলায় বাইরে কম বের হওয়ার চেষ্টা করুন। রোদ এড়িয়ে চলুন

* বাইরে বের হলে সঙ্গে ছাতা রাখুন। এছাড়া টুপি বা কাপড় দিয়ে মাথা ঢেকে রাখার চেষ্টা করুন

* হালকা রঙের ঢিলেঢালা সুতি পোশাক পরুন

* প্রচুর পরিমাণে পানি খান

* সহজে হজম হয় এমন সহজপাচ্য খাবার খান, বাসি বা খোলা খাবার খাবেন না

* দিনের বেলা একটানা শারীরিক পরিশ্রম করবেন না

* সম্ভব হলে একাধিকবার পানির ঝাপটা দিন বা গোসল করুন

* প্রস্রাবের রঙ হলুদ হলে পানি খাওয়ার পরিমাণ বাড়িয়ে দিন

* ঘরের পরিবেশ যেন অতিরিক্ত গরম বা ভ্যাপসা না হয় সেদিকে লক্ষ রাখুন

* বেশি অসুস্থ বোধ করলে দ্রুত চিকিৎসকের শরণাপন্ন হতে হবে  


চিকিৎসা

* হিট স্ট্রোকের পূর্বলক্ষণগুলো দেখা দিলেই দ্রুত ব্যবস্থা নিতে হবে। রোগীকে অপেক্ষাকৃত শীতল কোনো স্থানে নিয়ে যেতে হবে। ভেজা কাপড় দিয়ে শরীর মুছে দিতে হবে। ফ্যান ছেড়ে দিতে হবে বা বাতাস করতে হবে। প্রচুর পানি বা খাওয়ার স্যালাইন পান করতে হবে। কাঁধে-বগলে অথবা কুঁচকিতে বরফ দেওয়া যেতে পারে। অবস্থার উন্নতি না হলে দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে।

* হিট স্ট্রোকে অনেক সময় বড় ধরনের ক্ষতি, এমনকি মৃত্যু পর্যন্ত হতে পারে। গরমের এই সময়টায় তাই সাবধানে থাকতে হবে। দ্রুততম সময়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা ও হাসপাতালে ভর্তি করে সঠিক চিকিৎসা নেওয়া গেলে বেশির ভাগ রোগীই সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে ওঠে।

আপনার মন্তব্য লিখুন

কপিরাইট © বাংলাদেশ ইসলামী ছাত্রশিবির